বুধবার, ২২ জানুয়ারী ২০২০, ০৪:৩২ অপরাহ্ন

গুইমারায় এক মহিলার দুই স্বামী

ডেস্ক রিপোর্ট :: খাগড়াছড়ির গুইমারা উপজেলার ইসলামপুর এলাকায় অবৈধ ভাবে রাতের পর রাত কাটাচ্ছে স্থানীয় এরশাদ (৩৫)। বৈধ স্ত্রী ও ছেলে মেয়ে ৩জন থাকা সত্ত্বেও একই এলাকার ইউসুফের স্ত্রী ইয়ানুর বেগম (২৫) এর সাথে এরশাদ এই অবৈধ কর্মের সাথে লিপ্ত রয়েছে বলে এলাকাবাসীর দাবী।
স্থানীয় প্রশাসনের চোখকে ফাকী দিয়ে এলাকার কিছু অসাধু লোকের সহযোগিতায় দিনের পর দিন অবৈধ সম্পর্ক চালাচ্ছিল। শেষপর্যায়ে জনসম্মূখে বিষয়টি জানাজানি হলে সামাজিক ভাবে কয়েকবার সমাধানের চেষ্টা করে সমাধান করতে পারেনি সমাজপতিগণ।
১৭ মে ২০১৯ শুক্রবার উক্ত বিষয়টি সমাধান করা লক্ষে একটি বৈঠক করেন। বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন, ইসলামপুর সমাজের সভাপতি খোরশেদ আলম, সহ-সভাপতি মেহেদুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক মমিনুল হক, আল-আমিন, আহম্মদ কবির, আবু তাহের, ও উপজেলা আওয়ামীলীগের তথ্য ও গবেশনা বিষয়ক সম্পাদক ডাঃ নুরুন্নবী সহ আরো অনেকে। বিচার বৈঠকে এরশাদ বৈবাহীক কিছু অবৈধ কাগজ পত্র দাখিল করেন। যাহা সামাজিগনের সম্মূখে উম্মোচিত হয়।
যানাযায়, ইয়ানুর বেগম বিবাহীত স্বামী ইউছুফের সাথে সংসার করে আসছে। কিন্তু ইউছুফেল আড়ালে এরশাদের সাথেও দিনের পর দিন রাত যাপন করছিল বলে অভিযোগ উঠেছে। বিষয়টি জানাজানি হলে, চার মাস পূর্বের একটি কোর্ট এফিডেফিড হলফ নামার মাধ্যমে তালাক দেওয়া হয়। এরপর কোর্ট এফিডেফিড হলফ নামায় বিবাহ অনুমতি নেয় এরশাদ ও ইয়ানুর বেগম ২৮ এপ্রিল ২০১৯ইং পাঁচ লাখ টাকার কাবিন সম্পাদনের মাধ্যমে বিবাহ সম্পূর্ণ হয়েছে বলে-কাগজ পত্র উপস্থাপন করেন পূর্বের বৈঠকে। সম্প্রতি বৈঠকে ইয়ানুর প্রথম স্বামী ইউসূফ এক অভিযোগ দায়েল করেছে এরশাদের বিরোদ্ধে। উক্ত অভিযোগের আলোকে উভয়কে জিজ্ঞাসা বাদ করলে ইয়ানুর বেগমের স্বামী ইউসুফ তার স্ত্রীর তাকে তালাক দেওয়ায় কাগজ পত্রে পর্যালোচনায় পরে শালিশি বৈঠকে তার ছেলে সšতান রয়েছে তাকে নিয়ে তার বাড়ির গরু,আসবাব পত্র সহ তার ছেলেকে নিয়ে তার নিজ এলাকায় খেদাছড়ায় চলে যাওয়ার বিষটি সিদ্ধা›ত করা হয়। এই সিদ্ধাšেতর পর তার গরু ও মালামাল বুঝিয়া না দিয়ে বিভিন্ন ভাবে হয়রানি করা হচ্ছে বলে জানা গেছে।পূর্বের স্বামীর বাড়ী খাগড়াুছড়ি জেলায় মাটিরাঙ্গা উপজেলার খেদাছড়া এলাকায় ইয়ানুর বেগমের বাপের বাড়ি গুইমারা উপজেলার ইসলাম পুর এলাকার এরশাদের গুইমার ইসলাম পুরে এরশাদের প্রথম ¯ত্রীর বাপের বাড়ি খাগড়াছড়ি জেলায় শালবন এলাকায়।
সমাজ সর্দারের অভিযোগ, স্থানীয় একজন ভিডিপি পিসির প্রভাব খাটিয়ে অবৈধ পন্থায় তালাক প্রাপ্ত স্বামী-স্ত্রী ইউসুফ ও ইয়ানুর বেগম দুজনকে একঘরে ঢুকিয়ে দেয়। এনিয়ে এলাকায় বিভিন্ন সমালোচনা শুরু হয়। সমাজ সর্দারের দাবী, বিষয়টি সমাধানের মাধ্যমে এলাকার শান্তি-শৃংখলা বজায় রাখতে চাই কিন্তু এই শ্রেণির লোকের কারনে এলাকায় অশান্তি শৃষ্টি হচ্ছে। তাই বিষয়টি সমাধান করতে অপারগতা প্রকাশ করে উভয় পক্ষের লোকজনকে অন্যস্থ বিচারের অনুরোধ করেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

Design & Developed BY CHT Technology
error: Content is protected !!