বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০৮:১৬ পূর্বাহ্ন

খাগড়াছড়িতে ফসলি জমিতে ইটভাটার

নুরুল আলম,:: খাগড়াছড়ি জেলার ৯টি উপজেলার ফসলি জমিতে একের পর এক গড়ে উঠছে ইটভাটা। এ যেন ফসলি জমি কৃষির বদলে ইটভাটার রাজত্ব। এতে একের পর এক কৃষি জমি বিলীন হয়ে যাচ্ছে । খাগড়াছড়ি জেলা বিভিন্ন এলাকায় ২শত থেকে ৩শত গজের মধ্যে গড়ে উঠেছে একাধিক ইটভাটা। এসব ভাটাগুলো যেমন ফসলি জমি,সহ বিভিন্ন জাতের ফলজ বাগানের ক্ষতি সাধন হচ্ছে। একই সাথে জনবসতিপূর্ণ এলাকায় গড়ে উঠেছে। এতে ওই এলাকার বসবাসরত মানুষ বিভিন্ন ধরনের রোগ ব্যধিতে আক্রান্ত হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে।

সরেজমিনে গিয়ে জানা যায়, খাগড়াছড়ি জেলার ইটভাটা রয়েছে যেমন, খাগড়াছড়ি সদর, মানিকছড়ি, লক্ষ্মিছড়ি, রামগড়, গুইমারা, মাটিরাঙা, পানছড়ি, দিঘীনালা, মহালছড়িসহ মোট ৯টি উপজেলায় ফসলি জমি ও ঘনবসতিপূর্ণ এলাকায় প্রায় ৪৩টি ইটভাটায় ফসলি জমি থেকে মাটি কাটা শুরু হয়েছে। এসব ভাটায় ইট পোড়ানোর কাজ চালু হলো কালো ধোঁয়া ও ট্রাক চলাচল করার কারণে ধুলো বালিতে এলাকায় পরিবেশ ভারী হয়ে উঠেবে। একই সাথে উবর্র কৃষি জমিতে তৈরি করা হয়েছে এই সব ভাটা। আর এই সব ভাটার পরিবেশ অধিদপ্তরের কোনো অনুমতি নেই বলে জানা গেছে।

এলাকার স্থানীয়রা বলেন, জমির ইটভাটা হওয়ার কারণে জমিতে তেমন ফসল হয় না । তাছাড়া এই ইটভাটা গুলোতে অল্প বয়সী ছেলেরা যাদের বয়স (৮-১৫) বছর তাদেরকে দিয়ে ইটভাটার মালিকরা কাজ করাচ্ছে দিনের পর দিন। যা শিশুশ্রমের আইনের চোখে দন্ডনীয় অপরাধ । কৃষি জমি ও জনবসতিপূর্ণ জমিতে ইটভাটার জন্য সাধারণত ছাড়পত্র দেয়ার নিয়ম নেই। এমন কোন অভিযোগ পেলে এলাকায় গিয়ে তদন্তের সাপেক্ষে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। স্থানীয়রা উচ্চ পর্যায়ে ইটেরভাটা বন্ধের ব্যবস্থা গ্রহনের জন্য প্রসাশনের সহযোগিতা নিব।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

Design & Developed BY CHT Technology
error: Content is protected !!