বুধবার, ২৭ মে ২০২০, ০৫:১৬ অপরাহ্ন

খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা আ’লীগের কাউন্সিলে সম্পাদক পদে আলোচনায় বিশ্বজিত

খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা আ’লীগের কাউন্সিলে সম্পাদক পদে আলোচনায় বিশ্বজিত

আল-মামুন,খাগড়াছড়ি:: আগামী ৩ নভেম্বর খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের ত্রিবার্ষিক কাউন্সিলের দিনক্ষণ ঠিক করা হয়েছে। কাউন্সিলকে ঘিরে ইতিমধ্যেই সরগরম হয়ে উঠতে শুরু করেছে খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা। এরই মধ্যে কাউন্সিলে সাধারন সম্পাদক পদে সাবেক ছাত্রনেতা বিশ্বজিত রায় দাশের নাম আলোচনায় সাধারন মানুষের মূখে মূখে শোভা পাচ্ছে। আওয়ামীলীগের একনিষ্ঠ এই তরুণ নেতা খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদ প্রত্যাশী ছিলেন।

এ কাউন্সিলে সভাপতি পদে খোনশে^র ত্রিপুরা.নরোত্তম বৈষ্ণব,সঞ্জিব ত্রিপুরা ও সাধারণ সম্পাদক পদে চন্দন কুমার দে, থইমং মারমা নাম উঠে এসেছে। স্থানীয় তরুণ নেতাকর্মীদের দাবী, শিক্ষিত-যোগ্য এবং ডিজিটাল বাংলাদেশ গঠনে জননেত্রীর শেখ হাসিনার হাতকে আরো শক্তিশালী করতে তরুন শিক্ষিত সাবেক ছাত্রনেতা বিশ্বজিত রায় দাশের বিকল্প নেই। দীর্ঘ সময় ধরে তিনি শ্রম দিয়ে আসছেন। খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের নেতৃত্বের সুযোগ পেলে সংগঠনকে সু-শৃঙ্খল গতিশীল করে নেতাকর্মীদের প্রত্যাশা পুরন করতে উন্নয়়ন,অগ্রযাত্রায় বিশ্বজিত রায় দাশের প্রয়োজন বলে জানান আওয়ামীলীগের একাধিক নেতা।

খাগড়াছড়ির গোলাবাড়ী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সহ-সম্পাদক উল্লাস ত্রিপুরা জানান, রাজনৈতিক দলের আওয়ামীলীগ একটি বৃহৎ দল। এ জেলায় খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগ গুরুত্বপুর্ণ ভূমিকা পালন করে। ফলে সদর উপজেলার এ কাউন্সিলে প্রার্থীদের বিষয় বিবেচনা করলে সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে একজন উপজাতী ও একজান বাঙ্গালী নির্বাচিত হবে এমটায় মনে করি। তার মধ্যে সাধারণ সম্পাদক পদে শিক্ষিত ও যোগ্য প্রার্থী বিবেচনা করতে গেলে বিশ^জিত রায় দাশের বিকল্প কেউ নেই বলে তিনি মন্তব্য করেন।

খাগড়াছড়ি সদর উপজেলা আওয়ামীলীগের সহ-সম্পাদক অঙ্গলাগ্যো মারমা বলেন, এই কাউন্সিলে যোগ্য ব্যক্তিদের ভোটাররা নির্বাচিত করবে বলে মন্তব্য করেন।

এছাড়াও তিনি সাবেক ছাত্রনেতা, সাবেক খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ ছাত্র সংগ্রাম পরিষদের নেতৃত্ব দিয়ে বঙ্গবন্ধুর আর্দশের সৈনিক হিসেবে দীর্ঘ দিন ধরে আওয়ামীলীগের জন্য কাজ করে যাচ্ছে। তিনি খাগড়াছড়ি শিক্ষা কার্যক্রমকে এগিয়ে নিয়ে বিভিন্ন আন্দোলনে অংশ নেওয়াসহ খাগড়াছড়ি কলেজে বিএসসি (পাস) কোর্স, অনার্স কোর্স চালুর মধ্য দিয়ে বিশ^^বিদ্যালয় কলেজে রূপান্তরসহ ৬ দফা দাবী আদায়, ২০০১ সালে মার্চে তৎকালীন পার্বত্য চট্টগ্রাম মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী কল্পরঞ্জন চাকমা আন্দোলনের মূখে ৬ দফা মেনে নেওয়ার ঘোষনা দেন। তারই ধারাবাহিকতায় ২০০৩-০৪ অনার্স কোর্স চালু হয়।

১৯৯৮-২০০৯ তিনি খাগড়াছড়ি সরকারি কলেজ শাখার সভাপতি, ২০০৫-০৯ সাল পর্যন্ত খাগড়াছড়ি জেলা ছাত্রলীগের সিনিয়র সহ-সভাপতি ও সদর উপজেলা সনাতন ছাত্র যুব পরিষদের সাংগঠনিক সম্পাদক হিসেবে দায়িত্ব পালন করে আসছেন। এছাড়াও চট্টগ্রাম মহানগর বাংলাদেশ ছাত্র যুব ঐক্য পরিষদ সিনিয়র যুগ্ম সম্পাদক,বাংলাদেশ রেড ক্রিসেন্ট সোসাইটি খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিটের আজীবন সদস্য,বাজার ব্যবসায়ী সমিতির আজীবন সদস্য, চেম্বার অব কমার্স ও সনাতন সমাজ কল্যাণ পরিষদ এর সদর উপজেলা শাখার সদস্যের দায়ত্ব পালন করে আসছেন বলে জানা যায়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

Design & Developed BY CHT Technology
error: Content is protected !!