বুধবার, ০১ এপ্রিল ২০২০, ০৭:১৫ পূর্বাহ্ন

খাগড়াছড়িতে অনুমোদন ছাড়াই ইট ভাটায় কাজ চলছে

খাগড়াছড়িতে অনুমোদন ছাড়াই ইট ভাটায় কাজ চলছে

নুরুল আলম:: খাগড়াছড়িতে কোনো নিয়ম-নীতির তোয়াক্কা না করে অনুমোদন ছাড়াই ঘনবসতি এলাকা ও ফসলি জমিতে একের পর এক গড়ে উঠছে অবৈধ প্রায় ৪৩ টি ইটভাটা। জানা যায়, পরিবেশ অধিদপ্তর ও সরকারি দপ্তর থেকে ছাড়পত্র না নিয়ে এই ইটভাটা গুলোর জন্য পাহাড় ও ফসলী জমিরসহ বিভিন্ন স্থান থেকে মাটি কেঁটে ইট তৈরির কাজ চলছে।
খাগড়াছড়ির বিভিন্ন এলাকায় প্রশাসনের অনুমোদন এবং পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই ফসলি জমি ও ঘনবসতি এলাকায় গড়ে উঠছে ইটভাটা। ভুক্তভোগীরা জানান, ইটভাটার কালো ধোঁয়ার কারণে আশপাশের ফসলি জমির উৎপাদন এবং ফলজ গাছের ফলন কমে যাবে আশংকাজনক হারে। এছাড়া ফসলি জমির উপরিভাগের মাটি কেটে নেয়া হলে জমির উর্বরতা কমে যাবে।
পরিবেশ রক্ষা আন্দোলনকারীদের অভিযোগ, পরিবেশ অধিদপ্তরের ছাড়পত্র ছাড়াই ফসলি জমি ও ঘনবসতি এলাকায় গড়ে উঠছে ইটভাটা ।
এদিকে গুইমারা উপজেলায় ৫ টি ইটের ভাটা রয়েছে তার মধ্যে দুইটি নতুন এবং তিনটি পুরাতন। নতুন ইটভাটা গুলোতে পাহাড় কেঁটে ইট তৈরির জন্য মাটি সংরক্ষণ করা হচ্ছে। নতুন ইটভাটার গুলোর মধ্যে একটি হলো সিন্দুকছড়ি আর দ্বিতীয়টি হলো চিংলি পাড়া এলাকায়। অন্যদিকে, গুইমারার আমতলী পাড়ায় ২টি এবং বাইল্যছড়ি একটি অন্যান্য উপজেলায় ৩৮ ইটভাটা রয়েছে।
এসব ইটভাটা গুলো নিয়ন্ত্রন করে জেলা ও উপজেলা ইটভাটার মালিক দ্বারা গঠিত সমিতির মাধ্যমে সভাপতি সম্পাদক এসকল ভাটা গুলো পরিচালনার জন্য বিভিন্ন সংস্থার সাথে যোগাযোগ রেখে অবৈধ ভাবে ইট পোড়ানোর কাজ করে থাকে।
জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, আমি নতুন আসছি ইটভাটার পরিসংখান আমার জানা নেয় তবে ইটভাটাগুলোর বৈধ কোনো কাগজ পত্র আছে কিনা তা তদন্তের সাপেক্ষে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহন করবো।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া নকল করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা সম্পূর্ণ বেআইনি

Design & Developed BY CHT Technology
error: Content is protected !!