সোমবার, ৩০ নভেম্বর ২০২০, ০৩:৫৫ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
খাগড়াছড়ি কাঠ ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচন সভাপতি মো: কাশেম,সম্পাদক মনির নেতৃত্বে আসছে কারা! খাগড়াছড়িতে কাঠ ব্যবসায়ী সমিতির নির্বাচন চলছে পরিচ্ছন্ন বাংলাদেশ গড়তে কাজ করছে বিডি ক্লিন পার্বত্য চুক্তির ২৩তম বর্ষপূর্তি পালিত হবে স্বাস্থ্যবিধি মেনে শান্তি পরিবহণ অবরোধ ও অফিসে অবস্থান ধর্মঘটের আল্টিমেটাম আনোয়ার হত্যা মামলায় আসামী জসিম এর যাবজ্জীবন কারাদণ্ড খাগড়াছড়িতে সেনাবাহিনীর উদ্যেগ বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা ক্যাম্প খাগড়াছড়িতে জেলা জাতীয় পার্টির সাংগঠনিক মতবিনিময় সভা বঙ্গবন্ধুকে অবমাননার প্রতিবাদে গুইমারায় মানববন্ধন ও সমাবেশ দুর্বলের উপর সবলের অত্যাচার গুইমারার বড়পিলাকে প্রতিপক্ষের আতর্কিত হামলায় আহত-৮
রামগড়ে মেয়র প্রার্থী হিসাবে রফিকুল আলম কামাল আলোচনায় শীর্ষে : প্রতিবেদন-১

রামগড়ে মেয়র প্রার্থী হিসাবে রফিকুল আলম কামাল আলোচনায় শীর্ষে : প্রতিবেদন-১

নুরুল আলম :: রামগড়ে মেয়র পদে প্রার্থী হিসাবে পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি রফিকুল আলম কামাল আলোচনায় শীর্ষে।তফসিল ঘোষনার পূর্বেই আওয়ামীলীগের প্রার্থীরা নিজ দলীয় মনোনয়ন পেতে শুরু করেছেন লবিং। অনেক আগে থেকেই ব্যানার-ফেস্টুনের পাশাপাশি স্থানীয় পত্রপত্রিকা ও সামাজিক মাধ্যমে প্রার্থীতার ঘোষণা দিয়েছেন আওয়ামীলীগের প্রার্থীরা। তবে অনেক আগে থেকে গণসংযোগে আসা প্রার্থীরা দলভিত্তিক স্থানীয় সরকার নির্বাচনের সিদ্ধান্তে দলীয় মনোনয়ন নিয়ে সিদ্ধান্তহীনতায় ভুগছেন।

রামগড় পৌরসভাটি গঠিত হওয়ার পর থেকে নির্বাচিত প্রতিনীধি হিসাবে সর্বপ্রথম মেয়র পদটি বিএনপি’র দখলে থাকলেও, ২০১১ সালের পৌর নির্বাচনের পরে মেয়র পদটি আওয়ামী লীগের দখলে আসে, পরবর্তিতে ২০১৬ সালের পৌর নির্বাচনে আওয়ামীলীগের দলিয় প্রতীক নৌকার প্রার্থী বিশ্ব ত্রিপুরাকে পরাজিত করে মেয়র পদটি দখল করেন আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কাজী শাহাজাহান রিপন। পরবর্তিতে ২০১৬ সালের পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আওয়ামীলীগের বিদ্রোহী প্রার্থী কাজী রিপন ও স্থানীয় আওয়ামীলীগের মধ্যে শুরু হয় কোন্দল। উক্ত দলীয় কোন্দলের প্রভাব পড়তে থাকে তৃনমুলের নেতা-কর্মিদের উপরে, উক্ত কোন্দলে সাধারন নেতাকর্মীদের মাঝে শুরু হয় বিভক্তি, তারপর শুরু হয় মামলা হামলা। বর্তমানেও উক্ত গ্রুপিং এর প্রভাব রয়ে গেছে পৌর এলাকায়। তারপর দলের শৃঙ্খলা ভঙ্গ ও দলিয় সিদ্ধান্তের বাহিরে গিয়ে নির্বাচনের দায়ে কাজী রিপনকে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়। ঐ সময় দলের শৃঙ্খলা রক্ষা ও গ্রুপিং নিরশনে রফিকুল আলম কামালের ভুমিকা ছিলো অপরিহার্য। এরই মধ্যে আগামী ২০২১ সালের পৌর নির্বাচনকে কেন্দ্র করে কয়েকজন প্রার্থীর নাম শোনা গেলেও স্থানীয় আওয়ামীলীগ ও অঙ্গ এবং সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের মুখে আসন্ন রামগড় পৌরসভা নির্বাচন ২০২১ এর সম্ভাব্য প্রার্থীর তালিকায় স্থানীয় আওয়ামীলীগ এবং অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনের নেতা-কর্মিদের আলোচনায় যার নাম শীর্ষে উঠে এসেছে তিনি হলেন- রামগড় পৌর আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি ও সাবেক ছাত্রনেতা মো: রফিকুল আলম কামাল।

রফিকুল আলম কামাল রামগড় পৌর আওয়ামীলীগের বর্তমান সভাপতি ও একজন সফল ব্যবসায়ী। তিনি ২০০২ সালে তৃনমুলের বিপুল ভোটে রামগড় উপজেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নির্বাচিত হন, এরপর তিনি ২০১১ সালে তৃনমুলের বিপুল ভোটে পৌর আওয়ামীলীগের সাধারন সম্পাদক নির্বাচিত হন। বর্তমানে তিনি রামগড় পৌর আওয়ামীলীগের সভাপতি হিসাবে দায়িত্বে আছেন।

রামগড় উপজেলা পরিষদের ভাইস চেয়ারম্যান ও রামগড় উপজেলা পরিষদের প্যানল চেয়ারম্যান-১ আনোয়ার ফারুক বলেন, রামগড়ের অবকাঠামোগত উন্নয়নের পাশাপাশি মানুষের মানবিক মূল্যবোধেরও উন্নয়ন করা জরুরি বলে আমি মনে করি। সামনে পৌর নির্বাচন, উক্ত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে এখন থেকেই রামগড়ে নানা জল্পনা কল্পনা শুরু হয়ে গেছে, আমি মনে করি জনাব রফিকুল আলম কামাল একজন যোগ্য মেয়র প্রার্থী। আমি যেভাবে তৃনমুল থেকে উঠে এসে রামগড়ের সাধারন জনগনের অফুরন্ত ভালোবাসায় জনপ্রতিনীধি নির্বাচিত হয়েছি ঠিক তেমনি আমিও চাই আমার মত তৃনমুল থেকে উঠে আসা আরেকজন ব্যক্তি জনাব রফিকুল আলম কামাল পৌর মেয়র হিসাবে দলের মনোনয়ন পেয়ে মেয়র পদে নির্বাচিত হোক। আমি আশাবাদি এবার তাকে দলের মনোনয়ন দেয়া হবে এবং দলিয় মনোনয়ন পেলে সাধারণ মানুষ তাকে ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করবে বলে আমি মনে করি।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা আইনত দন্ডণীয় অপরাধ।

Design & Developed BY Muktodhara Technology Ltd
error: Content is protected !!