শুক্রবার, ২৩ অক্টোবর ২০২০, ০২:০৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
তবলছড়িতে অবৈধ এলপি গ্যাস পাম্প এখনো বন্ধ হয়নি; গ্যাস সরবরাহ অব্যাহত  … ফলোআপ-৫

তবলছড়িতে অবৈধ এলপি গ্যাস পাম্প এখনো বন্ধ হয়নি; গ্যাস সরবরাহ অব্যাহত  … ফলোআপ-৫

নিজস্ব প্রতিবেদক :: খাগড়াছড়ি জেলার বিভিন্ন স্থানে প্রশাসনের ছত্রছায়ায় এবং আঞ্চলিক সংগঠনের নামধারী কিছু নেতাদের মদদে অবৈধ এলপি গ্যাস পাম্পে পেট্রোলিয়াম আইন ২০১৬ ভঙ্গ করে এখনো পর্যন্ত গ্যাস সরবরাহ অব্যাহত রেখেছে। ইতিমধ্যে মাটিরাঙ্গা সদরের আশপাশের দু’টি অবৈধ এলপি গ্যাস পাম্প বন্ধ হলেও, মাটিরাঙ্গা উপজেলার তবলছড়ি ইউনিয়ন এলাকায় শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পাশে কি করে এই অবৈধ এলপি গ্যাস পাম্প এখনো তাদের কর্মকান্ড চালিয়ে যাচ্ছে?

ইতিপূর্বে খাগড়াছড়ির খবংপড়িয়া এলাকায় এক সিলিন্ডার থেকে অন্য সিলিন্ডারে গ্যাস নেওয়ার সময় সিলিন্ডার বিস্ফোরণে ৭ জন আহত হয়। তার মধ্যে ৩ জন মারা যায় এবং ৪ জন পঙ্গুত্ব বরণ করে অসহায় অবস্থায় দিন কাটাচ্ছে।

সচেতন নাগরিকদের মতে, স্থানীয় প্রশাসন এসব অবৈধ গ্যাস পাম্প বন্ধের ব্যাপারে সাংবাদিকদের আশ্বস্ত করলেও, অদ্যাবধি গ্যাস পাম্পগুলি বন্ধ করতে কোন প্রকার ব্যবস্থা গ্রহণ করেনি। মাটিরাঙ্গা উপজেলার তবলছড়িতে বেলাল নামক এক ব্যক্তির নিজ বসত বাড়িতে স্থানীয় এক নেতার পৃষ্ঠপোষকতায় অবৈধ এল.পি. গ্যাস পাম্প চালিয়ে যাচ্ছেন। এতে গ্যাস সরবরাহকারীরা পুলিশকে ম্যানেজ করে মোটা অংকের মাশোয়ারা দিয়ে তাদের নাকের ডগায় এই ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে।

মাটিরাঙ্গা থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তার সাথে যোগাযোগ করলে তিনি বলেন, এ বিষয়ে মাটিরাঙ্গা উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা অথবা যেকোন নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রট গ্যাস সরবরাহকারীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করতে পারেন। আমাদের কাছে কেউ লিখিত অভিযোগ করলে আমরা বিষয়টি খতিয়ে দেখব।

গ্যাস পাম্পের পাশে রয়েছে সাধারণ মানুষের আবাসস্থল ও একটি মহিলা মাদ্রাসা। যদি কোন কারণে উক্ত গ্যাস পাম্পে কোন রকম দূর্ঘটনা ঘটে, তাহলে অসংখ্য এলাকাবাসী ও মাদ্রাসার শিক্ষার্থীদের প্রাণহানির আশংকা রয়েছে। কিন্তু তারা এখনও পর্যন্ত তাদের ব্যবসা ঠিকভাবেই চালিয়ে যাচ্ছে। বর্তমানে সেখানেও প্রতিদিন অবাধে সিএনজি, মাইক্রোবাস ও প্রাইভেট কার-এ অবৈধভাবে পুনরায় এলপি গ্যাস সরবরাহ চালিয়ে যাচ্ছে। তাদের বিরুদ্ধেও দ্রুত সময়ে প্রশাসনিক ব্যবস্থা গ্রহণ করা প্রয়োজন।

এ ব্যাপারে মাটিরাঙ্গা ফায়ার সার্ভিসের স্টেশন অফিসার সাদিকুর রহমান সাংবাদিকদের এক সাক্ষাৎকারে বলেন, তিনি দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকে ফিলিং স্টেশন গ্যাসের লাইসেন্স পেতে যে ছাড়পত্র নিতে হয়, তা এখনো কেউ গ্রহণ করেনি।

এ বিষয়ে খাগড়াছড়ি জেলা প্রশাসক প্রতাপ চন্দ্র বিশ্বাস বলেন, সিলিন্ডার থেকে গাড়ীতে গ্যাস ভরা’টা নিরাপত্তার জন্য খুবই হুমকি স্বরূপ। যারা এ ধরনের কর্মকান্ডের সাথে জড়িত, তাদের বিরুদ্ধে আইনত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

অবৈধ গ্যাস পাম্প বন্ধে প্রশাসন নীরব থাকায় তবলছড়ি মহিলা মাদ্রাসার পাশেই এ অবৈধ ব্যবসা চালিয়ে যাচ্ছে। অবিলম্বে তা বন্ধ করতে এলাকাবাসী জোর দাবী জানান এবং বন্ধ না হলে যেকোন সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনা ঘটার সম্ভাবনা রয়েছে।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা আইনত দন্ডণীয় অপরাধ।

Design & Developed BY Muktodhara Technology Ltd
error: Content is protected !!