শনিবার, ১৫ মে ২০২১, ০৪:০২ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
কৃষক লীগের খাগড়াছড়ি জেলা আহ্বায়ক কমিটি অনুমোদন গুইমারা রিজিয়নের সেনাবাহিনী কর্তৃক মানবিক সহায়তা প্রদান খাগড়াছড়িতে ১শ’টি বিদ্যালয়ে মাল্টিমিডিয়া উপকরণ বিতরণ প্রধানমন্ত্রীর অনুদানের চেক হস্তান্তর করলেন মহিলা এমপি বাসন্তী চাকমা এসএস ফাউন্ডেশনের ঈদ উপহার পেল শতাধিক পরিবার খাগড়াছড়ির এতিম শিক্ষার্থীদের মাঝে সেনাবাহিনীর খাদ্য সামগ্রী বিতরণ খাগড়াছড়িতে ৫২টি মসজিদ ও এতিমখানায় জেলা পরিষদের অর্থ উপহার নিহত নির্মাণ শ্রমিকের পরিবারের পাশে খাগড়াছড়ি সেনা রিজিয়ন অসহায় ১১০ পরিবারের মাঝে মাটিরাঙ্গা  কাঠ ব্যবসায়ী সমিতির ত্রাণ বিতরণ মাটিরাঙ্গায় আনসার ভিডিপি সদস্যদের মাঝে ত্রাণসামগ্রী বিতরণ

খাগড়াছড়িতে এক দশকে হারিয়ে গেছে শতাধিক পাহাড়

নুরুল আলম:: খাগড়াছড়ি জেলার ৯ উপজেলায় গত এক দশকে হারিয়ে গেছে শতাধিক পাহাড়। শক্ত আইন থাকলেও প্রশাসনের নজরদারির অভাবে এসব পাহাড় কেটে জায়গা সমতল করা হয়েছে। এখনও অব্যাহত রয়েছে জেলার বিভিন্ন এলাকায় প্রভাবশালীদের পাহাড় কাটা। এর ফলে পরিবেশ যেমন বিপর্যস্ত হচ্ছে, তেমনি কমছে জঙ্গল, পশু-পাখি হারাচ্ছে আবাসস্থল।

পরিবেশকর্মীরা বারবার বিষয়টি প্রশাসনের নজরে এনে পাহাড় কাটা বন্ধের আহŸান জানালেও এ বিষয়ে নিয়মিত অভিযান ও নজরদারি নেই প্রশাসনের। মাঝে মাঝে দু’একবার অভিযান চালিয়ে, দু’চারজনকে জেল-জরিমানা করেই নিজেদের কাজ শেষ করছে প্রশাসন।

তবে পরিবেশকর্মীদের আশঙ্কা, এভাবে পাহাড় কাটা চলমান থাকলে পার্বত্য এলাকা হিসেবে হারিয়ে যাবে খাগড়াছড়ির সুনাম, আরও হুমকির মুখে পড়বে পরিবেশ।

স্থানীয় পরিবেশকর্মী ও প্রশাসন সূত্রে জানা যায়, গত এক দশকে জেলার রামগড় উপজেলার নজির টিলা, নাকাপা, দাতারামপাড়া, বল্টুরামটিলা, খাগড়াবিলসহ বিভিন্ন এলাকায় প্রায় ১৫টি বড় পাহাড় কেটে সমতল করে ফেলা হয়েছে।

খাগড়াছড়িতে প্রভাবশালীরাই অবাধে পাহাড় কেটে সাবাড় করার অভিযোগ নতুন কিছু নয়। খাগড়াছড়ি পরিবেশ সুরক্ষা আন্দোলনের সভাপতি প্রদীপ চৌধুরী বলেন,খাগড়াছড়িতে পাহাড় বাঁচানোর জন্য তারা দীর্ঘ সময় আন্দোলন করে আসছেন।

খাগড়াছড়ির প্রায় সাড়ে ১৩শ’ গ্রামের প্রায় হাজার খানেক গ্রামেই পাহাড় আছে এবং লোকজন বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান, শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান ও বসত ঘর করেছে পাহাড় কেটে সমান করে। জেলায় প্রায় ৪২টি ব্রিক ফিল্ডের সব কটিতেই পাহাড় কাটা মাটি ইট তৈরিতে ব্যবহার হচ্ছে। প্রশাসনের শক্ত নজরদারির পাশাপাশি তিনি জেলায় পরিবেশ অধিদফতরের অফিস স্থাপনের দাবি জানান।

খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি উপজেলার গচ্ছাবিল, হাজীপাড়া, মুসলিমপাড়া, গাড়িটানাসহ বিভিন্ন এলাকায় ১০ থেকে ১৫টি পাহাড়, গুইমারা উপজেলায় বড়পিলাক, হাফছড়ি, কালাপানি, রামছু বাজার, জালিয়াপাড়া, সিন্দুকছড়ি এলাকায় প্রায় ১৩/১৪টি পাহাড়, মাটিরাঙা উপজেলায় গাজীনগর, মুসলিমপাড়া, তবলছড়ি, বেলছড়ি,মোহাম্মদপুর, পলাশপুর, করল্যাছড়ি, বলিটিলা, নবীনগরসহ বিভিন্ন এলাকায় ২৫ থেকে ৩০টি, পানছড়ি উপজেলায় উল্টাছড়ি, ফাতেমা নগরসহ বিভিন্ন এলাকায় ৬ থেকে ৭টি, মহালছড়ি উপজেলায় চোংড়াছড়ি, ক্যায়াংঘাট, শান্তিনগর, ব্যাটালিয়ন এলাকা সংলগ্ন এলাকায় ৮ থেকে ৯টি, দিঘীনালা উপজেলার মধ্য বোয়ালখালী, কাঁঠালতলী,রশিকনগর, বটতলী, শনখোলা ব্রিক ফিল্ড, মধ্য বেতছড়ি, চোংড়াছড়ি, বিবাড়িয়া পাড়া, বাছামেরুং, বড় মেরুং হেডকোয়ার্টার, গোলামআলী টাইগার টিলা এলাকায় প্রায় ১৫টি এবং খাগড়াছড়ি সদরের শালবাগান, রসুলপুর, কুমিল্লাটিলা, সবুজবাগ, ভুয়াছড়ি, নতুন পাড়া, মুক্তিযোদ্ধা পল্লি, দাতকুপিয়া এলাকায় প্রায় ১২টি দৃশ্যমান পাহাড় কেটে সমতল করা হয়েছে।

খাগড়াছড়িতে ক্রমাগত পাহাড় কাটার কারণে বর্ষাকালে অনেক পাহাড় ধসে খাল বিল ভরে যাচ্ছে, পাহাড় ধসে ঘরবাড়িতে পড়ে জীবন ও সম্পদ নষ্ট হচ্ছে, পরিবেশ ও প্রাণিকুল নষ্ট হচ্ছে। এক কথায় জীববৈচিত্র্য নষ্ট হচ্ছে। এই অবস্থা থেকে রক্ষা পেতে পাহাড় রক্ষা করতে প্রয়োজন প্রশাসনের যথাযথ হস্তক্ষেপ।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা আইনত দন্ডণীয় অপরাধ।

Design & Developed BY Muktodhara Technology Ltd