মঙ্গলবার, ২১ মার্চ ২০২৩, ০৮:০০ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
সিন্দুকছড়ি জোন কর্তৃক অসহায় হতদরিদ্রের মাঝে মানবিক সহায়তা প্রদান খাগড়াছড়ির গুইমারায় ৪র্থ ধাপে ৭৫ পরিবার পাচ্ছে স্বপ্নের আবাসন মাটিরাঙ্গায় যামিনীপাড়া জোনের উদ্যোগে  অসহায়দের মাঝে মানবিক সহায়তা খাগড়াছড়িতে অসহায় রোগীদের মাঝে বিনামূল্যে চিকিৎসা সেবা প্রদান বিলাইছড়িতে জাতির পিতার জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস পালিত গুইমারায় বর্ণাঢ্য আয়োজনে বঙ্গবন্ধুর জন্মবার্ষিকী ও জাতীয় শিশু দিবস উদযাপন উন্নয়নের সহযাত্রী হতে আবারো নৌকায় ভোট দিন ‘পার্বত্য অঞ্চলের শান্তি সম্প্রীতি ও উন্নয়নের জন্য শেখ হাসিনার বিকল্প নাই’ রাজস্থলীতে মালবাহী পাথর বোঝাই ট্রাক উল্টে দুই জন আহত গুইমারা রিজিয়নের উদ্যোগে অসহায়দের মাঝে বিশেষ সহায়তা ও চিকিৎসা সেবা প্রদান
গুইমারায় ইউনিয়ন পর্যায়ে জিবিভি সংশ্লিষ্ট সচেতনামূলক সভা

গুইমারায় ইউনিয়ন পর্যায়ে জিবিভি সংশ্লিষ্ট সচেতনামূলক সভা

নুরুল আলম:: খাগড়াছড়ি জেলার গুইমারা উপজেলায় “শিক্ষা ও দক্ষতার মাধ্যমে নারী ও কন্যা শিশুর ক্ষমতায়ন” প্রকল্পের আওতায় ইউনিয়ন পর্যায়ে জিবিভি সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনামূলক সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা ১১ টায় গুইমারা সদর ইউনিয়নে এবং ১২ টায় হাফছড়ি ইউনিয়নে উক্ত সচেতনামূলক সভা আরম্ভ হয়। উক্ত সভার সভাপতিত্ব করেন গুইমারা সদর ইউপি চেয়ারম্যান নির্মল নারায়ন ত্রিপুরা।

রবিবার (১৮ ডিসেম্বর ২০২২) খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা পুলিশ আয়োজনে এবং জেলা পরিষদের সহযোগিতায় “শিক্ষা ও দক্ষতার মাধ্যমে নারী ও কন্যা শিশুর ক্ষমতায়ন” প্রকল্পের আওতায় ইউনিয়ন পর্যায়ে জিবিভি সংশ্লিষ্ট বিভিন্ন বিষয়ে সচেতনামূলক সভা প্রধান অতিথি হিসাবে উপস্থিত ছিলেন, রামগড় থানার অতিরিক্ত পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন। বিশেষ অতিথি, গুইমারা থানার অফিসার ইনর্চাজ মুহাম্মদ রশিদ। অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন, সাব ইন্সপেক্টর সুজন কুমার চক্রবর্তি, এস আই সাদ্দাম হোসেন, হাফছড়ি ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ড সদস্য ইউনুছ হাওলাদার প্রমূখ।

এসময় প্রধান অতিথি রামগড় থানার পুলিশ সুপার নাজিম উদ্দিন বলেন, নারী ও শিশু নির্যাতন প্রতিরোধে এলাকায় জনসাধারণসহ সকলকে উদ্ভুদ্ধ করতে হবে। এছাড়া নারী ও শিশু নির্যাতন, বাল্য বিবাহ বন্ধ, মাদক সেবনসহ বিভিন্ন বিষয়ে ছেলে মেয়েদের সচেতন করতে হবে। তিনি আরো বলেন, এতে অভিভাবকের বেশি সচেতন হওয়া প্রয়োজন। ছেলে মেয়েরা সময় মতো শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে যাচ্ছে কিনা বা কোনো বাজে আড্ডায় যুক্ত হচ্ছে কিনা সেদিকে অভিভাবকদের সচেতনতা বাড়াতে হবে। অভিভাবকদের সচেতনার মাধ্যমে একজন শিশু তার সঠিক শিক্ষা গ্রহন করতে সক্ষম হবে। কেননা আজকের শিশু আগামী দিনের ভবিষৎ।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা আইনত দন্ডণীয় অপরাধ।

Design & Developed BY Muktodhara Technology Ltd