শনিবার, ০৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৩, ০৯:৪৬ অপরাহ্ন

শিরোনাম :
পাথর বোঝায় ট্রাকের ধাক্কায় রাঙামাটির নানিয়ারচরে কলেজ ছাত্রী নিহত মাটিরাঙ্গায় ভারতীয় পণ্যসহ আটক এক রাঙামাটি রক্ষাকালী মন্দিরের সার্ধশত প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীতে মঙ্গল শোভাযাত্রা গুইমারা প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বার্ষিক প্রতিযোগিতার পুরস্কার বিতরণী ১০টাকার জন্য ছুরিকাঘাত আহত তুষিতা চাকমা চট্টগ্রাম বিভাগীয় সমাবেশে অংশগ্রহণের লক্ষে নানিয়ারচরে বিএনপি’র প্রস্তুতিমূলক সভা রাজস্থলীতে অতিরিক্ত বাঁশ বোঝাই ট্রাক উল্টে প্রাণ বেঁচে গেলো চালক ও হেলপার রাঙ্গামাটির কাপ্তাই হ্রদে স্থাপনা নির্মাণ নিষিদ্ধ রাঙ্গামাটিতে ‘বনভান্তের’ ১১তম পরিনির্বাণবার্ষিকী উদযাপিত খাগড়াছড়িতে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের ৫ম বার্ষিকী সম্মেলন
মানিকছড়িতে সরিষার হলুদে দোল খাচ্ছে কৃষকের স্বপ্ন!

মানিকছড়িতে সরিষার হলুদে দোল খাচ্ছে কৃষকের স্বপ্ন!

নিজস্ব প্রতিবেদক:: সরিষার হলুদ ফুলে ছেয়ে গেছে খাগড়াছড়ির মানিকছড়ি উপজেলার গ্রামাঞ্চলের দিগন্তজুড়া ফসলের মাঠ। পৌষের কনকনে বাতাসে সবুজ গাছে দোল খাচ্ছে স্বপ্ন নিয়ে বুনা সরিষার হলুদ ফুল। উৎপাদন ভালো হওয়ায় হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে।
উপজেলার মানিকছড়ি সদর, গচ্ছাবিল, বাটনাতলী, ছদুরখীল, পান্নাবিল, তিনটহরী, কালাপানি, যোগ্যাছোলা ও আশপাশের এলাকার ঘুরে দেখা যায়, পরিত্যক্ত, আবাদি ও অনাবাদি বিস্তীর্ণ কৃষি জমিতে আবাদ হয়েছে সরিষার। গেলো বছরের তুলনায় চলতি মৌসুমে প্রায় দ্বিগুণ হারে সরিষার চাষাবাদ করেছেন কৃষকরা। ফুল ও ফলে সয়লাব হওয়া সরিষার ক্ষেতে ছবি, সেলফি ও ভিডিও ধারণ করছে প্রকৃতিপ্রেমীরা। আশানুরূপ ফলন পেয়ে হাসি ফুটেছে কৃষকের মুখে।
উপজেলার কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে। চলতি মৌসুমে ২৫ হেক্টর জমিতে সরিষার উৎপাদন লক্ষমাত্রা নির্ধারণ করা হলেও চাষ হয়েছে ২৬.৫ হেক্টর জমিতে। উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ১৮৯ জন কৃষক এবছর সরিষার আবাদ করেছে। তাদেরকে সরকারি রাজস্য প্রণোদনা ও জেলা পরিষদের সহায়তায় বীনামূল্যে সার, বীজ ও বিভিন্ন পরামর্শ দিয়ে সহযোগিতা করা হচ্ছে।
উপজেলার ছদুরখীল ব্লকের সরিষা চাষি মো. ফিরোজ আলম জানান, উপজেলা কৃষি অফিসের সহযোগিতায় এবছর নতুন ভাবে ৬৬ শতাংশ জমিতে ‘বিনা সরিষা-৯ ও বারি-১৪’ জাতের সরিষার আবাদ করেছেন তিনি। ফলন ভালো হওয়ায় লাভবান হবেন বলে আশাবাদি।
যোগ্যাছোলা ইউনিয়নের মাষ্টারপাড়া এলাকার কৃষক রফিকুল ইসলাম জানান, এক বিঘা জমিতে খরচ হয় আড়াই হাজার টাকা পর্যন্ত। আর সাত থেকে আট মণ সরিষা উৎপাদন হয়। ১ হাজার ৯০০ টাকা মণ দরে বিক্রি করলে দাম পাওয়া যায় ১৫ হাজার ২০০ টাকা। খরচ বাদ দিয়ে লাভ থাকে ১২ হাজার টাকারও উপরে।
উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মহি উদ্দিন আহম্মদ বলেন, এই অঞ্চলের জমি ও আবহাওয়া সরিষা চাষের জন্য বেশ উপযোগি। এবছর উচ্চফলনশীল (উফশি) বারি-১৪, বারি-৯, বিনা সরিষা-৯ জাতের বীজ দেওয়া হয়েছে কৃষকদের। ফলনও ভালো হয়েছে। আগামী বছর সরিষা চাষ আরও বাড়বে বলে আশাবাদি।
উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা মো. হাসিনুর রহমান বলেন, ‘আবহাওয়া অনুকূল থাকায় এবার উপজেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে বেশি সরিষার আবাদ হয়েছে। সরিষা চাষে কৃষকদের সব ধরনের সহযোগিতা ও পরামর্শ দিচ্ছে কৃষি বিভাগ। ‘কৃষকদের প্রশিক্ষণ ও পরামর্শ দেয়ায় সরিষা আবাদে আগ্রহী হয়ে উঠছেন তারা।’

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা আইনত দন্ডণীয় অপরাধ।

Design & Developed BY Muktodhara Technology Ltd