শুক্রবার, ২৫ Jun ২০২১, ০৬:৩২ পূর্বাহ্ন

মাটিরাঙ্গায় পূর্ব শত্রুতার জেরে পরিকল্পিত ভাবে বাগানে আগুন, ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি।

মাটিরাঙ্গায় পূর্ব শত্রুতার জেরে পরিকল্পিত ভাবে বাগানে আগুন, ব্যাপক ক্ষয় ক্ষতি।

নিজস্ব প্রতিবেদকঃ খাগড়াছড়ি জেলাধীন মাটিরাঙ্গা উপজেলার আমতলী ইউনিয়নের ০৩নং ওয়ার্ড পুরান দেওয়ান বাজার   এলাকায় পূর্ব শত্রুতার জের ধরে পরিকল্পিত ভাবে রাবার বাগান লিচু ও সেগুনবাগান আগুনে পুড়িয়ে দেওয়া হয়েছে বলে পার্শ্ববর্তী জামাল মিয়ার তিন ছেলে  করিম(৩২),মিজান (৩৫), মনির হোসেন ও তার সহযোগী মনসুর আলী (৪৫) পিতা: আবুল মিয়া, রহমান পিতা, মৃত আবুল মিয়া, এমরান (২৬) পিতা:শামছু মিয়া বিরুদ্ধে অভিযোগ একই এলাকার বাগান মালিক  ইয়াছিন মোল্লার ।

অভিযোগ সুত্রে ভুক্তভোগী ইয়াছিন মোল্লা  জানায়- ভূমি সংক্রান্ত দীর্ঘদিন ধরে ইয়াছিন মোল্লার  সাথে পার্শ্ববর্তী  ও তার সহযোগীর বিরোধ, ।

বৃহস্পতি বার (১৫ এপ্রিল) বিকেল  আনুমানিক ৪টার দিকে রাবার ও লিচু বাগানে  অগ্নিকান্ডের এ ঘটনা ঘটে।এ ঘটনায় প্রথমিক অবস্থায় ব্যাপক ক্ষয়  ক্ষতির ধারণা করা হচ্ছে।

খবর পেয়ে ইয়াছিন মোল্লা ও আশে পাশের লোকজন ঘটনা স্থলে পৌঁছানোর আগেই পুড়ে ছাই হয়ে যায় বাগানের  কলা গাছ,অর্ধশতাধিক ফলন্ত লিচু গাছ ও হাজার খানেক প্রাপ্ত বয়স্ক রাবার  গাছ।

এসময় ইয়াছিন মোল্লাকে কে দেখে তারা   পার্শবর্তী ফেনী নদী দিয়ে পালিয়ে যায়।এসময়  ছয়জনকে সনাক্ত করতে পারেন, এবং এর অগেও তারা ২০২০ সালে তার বাগানে পরিকল্পিত ভাবে আগুন লাগিয়েছিল এবং তা এলাকাবাসি সম্নুক্ষে প্রমানিত হয়েছে বলে জানান ইয়াছিন মোল্লা। তার সারা জীবনের কষ্টের্জিত বাগান এটি, এছাড়া ব্যাংক থেকে ও সাড়ে তিন লক্ষ টাকার ঋণ করে রাবার বাগানটি সাজিয়েছেন এখনো ব্যাংক  টাকা পাবে শেষ মুহুর্তে প্রতি হিংসার শিকার তার এ নিশপাপ বাগান। 

এবিষয়ে এলকার ফটিক সর্দার তার বক্তব্য বলেন, এর আগেও একবার জামাল মিয়ার ছেলে ও তার স্ত্রী মিলে ইয়াছিন মোল্লার বাগানে আগুন লাগিয়েছে তবে সেবারে ক্ষয় ক্ষতির পরিমাণ কম থাকায় আমরা এলাকাবাসী মিলে সেটা মিমাংসা করে দিয়েছিলাম,কিন্তু এবার যে ক্ষতি সাধন  হয়েছে তা অপূরনীয় এর সুষ্ঠ বিচার এর দাবি জানান তিনি।

০৩ নং ওয়ার্ড মেম্বার খোকন আজারি,ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে বলেন, আমি বিষয়টি শুনার পর ই ঘটনাস্থলে ছুটে যাই এবং চেয়ারম্যান সাহেবকে জানাই,কেউ না কেউ পরিকল্পিত ভাবে যে আগুন লাগিয়ে তা সত্য ক্ষতির পরিমাণ অনেক বেশি হওয়ায় স্থানীয় ভাবে তা মিমাংসা করা সম্ভব না বলে পুলিশ ও আদালতের সরণাপন্ন হওয়ার পরামর্শ দেই।

আমতলি ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান  আব্দুল গণি কাছে অগ্নিকান্ডের বিষয় জানতে চাইলে তিনি বলেন,শুকনো মৌসুমে অল্পতেই  অগুন জ্বলে।  প্রথমিক অবস্থায় কোন সিগারেটের অগুন থেকে এই অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হতে পারে  এমটা ধরনা করছেন তিনি। 

অভিযোগটি অস্বীকার করে অভিযুক্তের পরিবার  জানান- লিচু ও রাবার বাগান   পোড়ার বিষয়ে তারা কিছু জানে না এবং ঘটনাস্থলেও তারা ছিলেন না।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা আইনত দন্ডণীয় অপরাধ।

Design & Developed BY Muktodhara Technology Ltd