বুধবার, ০৭ ডিসেম্বর ২০২২, ০৬:২৭ পূর্বাহ্ন

শিরোনাম :
খাগড়ছড়িতে পার্বত্য চট্টগ্রাম নাগরিক পরিষদের ৩য় প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী পালিত কাপ্তাই অসহায় ও দুস্থদের মাঝে চিকিৎসা সহায়তা প্রদান জেল থেকে পরিক্ষা দিয়ে পানছড়ির আরিফুলের এসএসসি পাশ অবৈধ কাঠ পাচারে বনবিভাগের নেই কোন বাধাঁ গুইমারায় সড়কে যুবকের গলাকাটা লাশ গুইমারায় পার্বত্য শান্তি চুক্তির রজত জয়ন্তী বর্ণাঢ্য আয়োজনে উদযাপন পাহাড়ে বর্ণিল সাজে শান্তিচুক্তি’র রজত জয়ন্তী উদযাপন শান্তি চুক্তির রজতজয়ন্তী উপলক্ষে খাগড়াছড়িতে বিভিন্ন কর্মসূচির উদ্বোধন খাগড়াছড়িতে পার্বত্য চুক্তি সংশোধনের দাবিতে পার্বত্য নাগরিক পরিষদের সংবাদ সম্মেলন মাটিরাঙ্গায় আইন শৃংখলা কমিটির মাসিক সাধারণ সভা
১৩ লাখ ইয়াবা উদ্ধার মামলায় খাগড়াছড়ির মানিকছড়ির দু্ইসহ ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড

১৩ লাখ ইয়াবা উদ্ধার মামলায় খাগড়াছড়ির মানিকছড়ির দু্ইসহ ৪ জনের মৃত্যুদণ্ড

নিজস্ব প্রতিবেদক, কক্সবাজার:: কক্সবাজারে ১৩ লাখ ইয়াবা উদ্ধারের মামলার ৪ আসামির মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। তারা হলেন, উখিয়া রোহিঙ্গা ক্যাম্প -১০, ব্লক এ/এইচ-১৬ এর মো. বশির আহমেদের ছেলে মো. আয়াজ (৩৪), কক্সবাজার সদরের ঝিলংজা ২নং ওয়ার্ডের দক্ষিণ হাজীপাড়ার পাওয়ার হাউসের মৃত আব্দুল মজিদের ছেলে মো. বিল্লাল (৪৫), খাগড়াছড়ি মানিকছড়ির ৯নং ওয়ার্ডের পঞ্চারাম পাড়ার মকবুল আহম্মদের ছেলে আজিমুল্লা (৪৩) এবং একই এলাকার মৃত ফয়জুল হকের ছেলে আবুল কালাম (৩৭)।

বুধবার (১৬ নভেম্বর) দুপুরে এসটি মামলা নং ১৩৫৬/২১ শুনানি শেষে রায় ঘোষণা করেন জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মোহাম্মদ ইসমাইল।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলা পরিচালনা করেন পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) এডভোকেট ফরিদুল আলম। আসামিপক্ষে ছিলেন অ্যাডভোকেট মঈনুল আমিন। ২০২০ সালের ২৩ আগস্ট শহরের মাঝির ঘাট এলাকা থেকে ১৩ লাখ ইয়াবা উদ্ধার করে পুলিশ। এই ঘটনায় সদর মডেল থানার পুলিশ পরিদর্শক মোহাম্মদ খাইরুজ্জামান বাদী হয়ে মামলা করেন।

অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম জানান, ২০২০ সালের ২৩ আগস্ট সন্ধ্যা ৭টার দিকে র‍্যাব-১৫ এর একটি দল অভিযান চালিয়ে কক্সবাজার শহরের মাঝির ঘাটস্থ খুরুস্কুল ব্রিজের উত্তর পাশে একটি ফিশিং বোট আটক করে। বোটে থাকা আয়াজ ও বিল্লালকে আটক করা হয়। এ সময় আরও ৪-৫ জন পালিয়ে যায়। পরে ফিশিং বোট তল্লাশি করে ১৩ লাখ ইয়াবা ট্যাবলেট ও নগদ টাকা উদ্ধার করা হয়।

এ ঘটনায় আয়াজ ও বিল্লাল তাদের দোষ স্বীকার করে ফৌজদারি কার্যবিধির ১৬৪ ধারায় আদালতে জবানবন্দি দেন। তারা জবানবন্দিতে পলাতক আসামি আজিমুল্লাহ ও আবুল কালামের পরিচয় প্রকাশ করেন। মামলার তদন্ত কর্মকর্তা ও র‍্যাব-১৫ এর এসআই মোহাম্মদ সোহেল সিকদার ২০২১ সালের ১০ জুন আদালতে মামলার চার্জশিট দেন।

পিপি অ্যাডভোকেট ফরিদুল আলম বলেন, সাক্ষ্য প্রমাণ শেষে মামলাটি দ্রুত রায় প্রদান করতে পারায় আমরা সন্তুষ্ট।

এই পোস্টটি শেয়ার করুন

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *




এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা বা ছবি অনুমতি ছাড়া ব্যবহার করা বা অন্য কোথাও প্রকাশ করা আইনত দন্ডণীয় অপরাধ।

Design & Developed BY Muktodhara Technology Ltd