নৌকার প্রার্থী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরার একাধিক পথসভা ও সমাবেশ

Reporter Name

নুরুল আলম:: খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য ও নৌকার প্রার্থী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেছেন, বিএনপি জন্মসূত্রেই হত্যার রাজনীতিতে অভ্যস্ত। ২০০১ সালে ক্ষমতায় এসে খাগড়াছড়িতে ত্রাসের রাজনীতি কায়েম করেছিলো। ১৯৯৭ সালে শান্তিচুক্তির পর বলেছিলো পার্বত্য চট্টগ্রাম ভারত হয়ে যাবে। মসজিদে উলুধ্বনি হবে। মানবতার বিরুদ্ধে অপরাধকে উস্কে দিয়েছিলো। দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে বানচাল করার জন্য আবারও মানবতা বিরোধী সন্ত্রাসের পথ বেছে নিয়েছে।

তিনি আওয়ামী লীগের গণতন্ত্র পরায়ণ সহাবস্থানকে দুর্বলতা না ভাবার জন্য বিএনপিকে হুশিয়ারি দিয়ে বলেন, বেশি বাড়াবাড়ি করলে সমুচিত জবাব দেয়া হবে।

রবিবাবর (৩১ ডিসেম্বর) বিকেলে মাটিরাঙ্গা উপজেলার গোমতী বাজারে ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ আয়োজিত এক পথসভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গোমতী ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মনির হোসেনের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক ও খাগড়াছড়ি পৌর মেয়র নির্মলেন্দু চৌধুরী।

এসময় অন্যান্যদের মধ্যে জেলা আওয়ামীলীগের সহ-সভাপতি মনির হোসেন খান ও কল্যাণ মিত্র বড়ুয়া, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এড. আশুতোষ চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. দিদারুল আলম, গোমতী ইউপি চেয়ারম্যান তফাজ্জল হোসেন, আওয়ামীলীগ নেতা হুমায়ুন মোর্শেদ, সুবাস চাকমা ও জয়নাল আবেদীন সরকার।

এর আগে কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা মাটিরাঙ্গা উপজেলার সাপমারা এলাকায় পাহাড়িদের জনাকীর্ণ এক সমাবেশে বক্তব্য রাখেন।

কোনো ষড়যন্ত্রই নির্বাচন বন্ধ করতে পারবে না: কুজেন্দ্র লাল
খাগড়াছড়ি আসনের নৌকার প্রার্থী কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা বলেছেন, বিএনপি-জামায়াতের কোনো ষড়যন্ত্রই নির্বাচন বন্ধ করতে পারবে না। বিএনপির হরতাল-অবরোধ বাংলাদেশের মানুষের কাছে অতীত হয়ে গেছে। মানুষ এখন তা মনেনা। মানুষ উন্নয়ন ও শান্তিতে বিশ্বাসী।

রবিবার (৩১ ডিসেম্বর) বিকাল থেকে রাত পর্যন্ত সাপমারা, গোমতি, শান্তিপুর, বেলছড়ি ও মাটিরাঙ্গায় জনসংযোগ ও পথসভায় বক্তব্যকালে তিনি এসব কথা বলেন।

তিনি বলেন, উন্নয়নের ধারাবাহিকতা রক্ষা ও সমৃদ্ধ বাংলা দেশ গড়তে আগামী ৭ জানুয়ারি ব্যালটের মাধ্যমে প্রমাণ করবে মানুষ। সর্বস্তরের মানুষের অংশগ্রহণে দেশে অবাধ ও সুষ্ঠু নির্বাচন হবে।

বিএনপি লুটেরারদল উল্লেখ করে তিনি বলেন, ২০০১ সালে বিএনপি ক্ষমতায় আসার পরে দেশে উন্নয়ননের নামে লুটপাট করে নেতাদের পকেট ভারী হয়েছে। তাই নির্বাচনে আসতে তারা ভয় পায়।

শিক্ষা ও স্বাস্থ্য খাতে আওয়ামী লীগ সরকারের সফলতার কথা তুলে ধরে তিনি বলেন, প্রান্তিক জনপদে পিছিয়ে পড়া জনগোষ্টির স্বাস্থ্য সেবার কথা চিন্তা করে ৯৬ সালে ক্ষমতায় আসার পর কমিউনিটি ক্লিনিক প্রতিষ্ঠা করা হয়। ২০০১সালে বিএনপি ক্ষমতায় এলে তা বন্ধ করে দেয়া হয়। ৫ বছর ক্ষমতায় থেকে কোন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের অনুমোদন দেয়নি । শেখ হাসিনার ক্ষমতাকালে ২৬ হাজারেরও বেশি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অনুমোদন ও প্রতিষ্ঠা করেছেন বলে উল্লেখ করেন নৌকার প্রার্থী কুজেন্দ্রলাল ত্রিপুরা।

তিনি বলেন, ভোট কেন্দ্র যেতে বাঁধা দেওয়ার কারো অধিকার নাই জানিয়ে কেন্দ্র যেতে বাঁধা দিলে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা বসে থাকবেনা বলেও হুঁশিয়ারি উচ্চারণ করেন।

জনসংযোগ ও পথসভায় খাগড়াছড়ি জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও খাগড়াছড়ি পৌরসভার মেয়র নির্মলেন্দু চৌধুরি, সহ-সভাপতি কল্যাণ মিত্র বড়ুয়া, এড. আশুতোষ চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. দিদারুল আলম, মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি হুমায়ুন মোর্শেদ খান, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান মো. রফিকুল ইসলাম, মাটিরাঙ্গা উপজেলা আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক সুবাস চাকমা, সাংগঠনিক সম্পাদক আলী হোসেন,পৌর আওয়ামী লীগের সভাপতি হারুনুর রশীদ ফরাজী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এ ক্যাটাগরীর আরো সংবাদ
© 2019, All rights reserved.
Developed by Raytahost
error: Content is protected !!